কে?

 

নিজের ভেতর উঁকি দেই আমি

দেখি সমুদ্র বহমান এক- খরস্রোতা

এক পৃথিবীর মতই ভাসমান সে

হাজারো প্রাণের উল্লাস আর মাতম সেখানে

কত সহস্র গিরি আর খাঁদ; সমভূমি আর উথাল-পাথাল

আছে মরুভূমি- বর্ষন, বন্যা আর খরা। ঘুমন্ত চর আর হাজারো নালা

আছে বন, রাতের লন্ঠন- এক আগ্নেয়গিরি

লাভাময়। আছে গ্রহ নক্ষত্র, অন্ধকার আর চোরাগলি

উপরিভাগে তার মোহিত রূপ-যতটা সবুজ ভেতর তারো বেশি বাহিরে;

আমার ভেতর, আমার বাহির, আমি এক পৃথিবী-

প্রকৃতির মতই আরেক প্রকৃতি আমার ভেতর

পাই না এর উৎস… বুঝি না বিনাশ- কে ফুঁকে দিল এ আজব যন্ত্রখানি

কি এক আশ্চর্য চলমান বিশ্ব- অবাক গতিতে সে ঘোরে প্রতিনিয়ত

অক্ষ কোথায় তার?

বিস্মিত আমি কেবলি আমায় দেখি

আমি খুঁজে পাই না।

 

Advertisements
This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s